fbpx

‘আমি তো চাই কারও চাকরি যেন না যায়’ Mamata Banerjee reacts on teachers Job

 ‘কারও চাকরি বাতিল করা যাবে না’। প্রাথমিকে নিয়োগ দুর্নীতি মামলায় হাইকোর্টের নির্দেশে অন্তর্বর্তীকালীন স্থগিতাদেশ জারি করেছে সুপ্রিম কোর্ট।  ‘আমি তো চাই কারও চাকরি যেন না যায়’, বললেন মুখ্যমন্ত্রী।

নিয়োগ দুর্নীতির মামলায় এখন ইডি-র হেফাজতে প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদের অপসারিত চেয়ারম্যান মানিক ভট্টাচার্য। কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা সূত্রে খবর, রাজ্যের শিক্ষক নিয়োগে দুর্নীতি কিংপিন মানিকই! তিনি যখন প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদের চেয়ারম্যান ছিলেন, তখন  ৫৮ হাজার পদে বেআইনি নিয়োগ হয়েছে! শুধু তাই নয়, ধৃতের বাড়িতে মুখ্যমন্ত্রীকে লেখা চিঠিও পাওয়া গিয়েছে। তদন্তকারীদের দাবি, ওই চিঠিতে অভিযোগ করা হয়েছে, ৪৪ জনের কাছ  থেকে চাকরির জন্য ৭ লক্ষ টাকা করে নেওয়া হয়েছে। 

এর আগে, ২০১৭ সালে টেটের দ্বিতীয় তালিকাকে বেআইনি বলে ঘোষণা করে হাইকোর্ট। শুধু তাই নয়, ওই তালিকায় যে  ২৬৯ জনের নাম ছিল, তাঁদের চাকরি বাতিলের নির্দেশ দেন বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়। কীভাবে চাকরি পেয়েছিলেন? দুর্নীতি মামলার তদন্ত করছে সিবিআই। এরপর মামলা গড়ায় হাইকোর্টের ডিভিশন বেঞ্চে। সিঙ্গল বেঞ্চের রায়ই বহাল রাখে হাইকোর্টের বিচারপতি সুব্রত তালুকদার ও বিচারপতি লপিতা বন্দোপাধ্যায়ের ডিভিশন বেঞ্চও। শেষপর্যন্ত হাইকোর্টের চাকরি বাতিলের নির্দেশে অন্তবর্তীকালীন স্থগিতাদেশ করল সুপ্রিম কোর্ট।

এদিকে সল্টলেকের করুণময়ীতে প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদের অফিসের সামনে অনশনে বসেছেন ২০১৪ সালের টেট উত্তীর্ণরা। তাঁদের হুঁশিয়ারি, ‘নিয়োগ না দিলে উঠব না’। স্রেফ কর্মীদের নিরাপত্তা সুনিশ্চিত করা নয়, পর্ষদের অফিসের সামনে ১৪৪ ধারা জারি করার নির্দেশ দিয়েছে হাইকোর্ট। এদিন মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ‘আমি আন্দোলনকারীদের ভালোবাসি, যাঁরা ন্যায্য দাবিতে আন্দোলন করে। কোর্টে কেস চলছে। কোর্টের নির্দেশকেও আমরা সম্মান দিচ্ছি’

৪ দিনের সফরে উত্তরবঙ্গে গিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। মালবাজারে হড়পা বানে নিহতদের পরিবারের দেখা করেছেন তিনি। প্রশাসনিক বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রী বলেন,  ‘হড়পা বান আসবে, প্রশাসন জানত না। তদন্ত চলছে। দোষী হলে কেউ ছাড়া পাবে না’। মৃতদের পরিবারের হাতে তুলে দেন চাকরি নিয়োগপত্র। সাহসিকতার জন্য ১ লক্ষ টাকা করে পুরস্কার দেওয়া হয় উদ্ধারকারীদেরও। 

এদিন দুপুরে বাগডোগরা থেকে কলকাতায় ফেরেন মুখ্যমন্ত্রী। বিমানবন্দর থেকেই সোজা চলে যান সল্টলেক স্টেডিয়ামে। সেখানে তখন ছিলেন মন্ত্রী অরূপ বিশ্বাসও।  মু্খ্যমন্ত্রীকে স্টেডিয়াম ঘুরিয়ে দেখান তিনি। এরপর বেশ কয়েক ফাইলে সইসাবুদ সেরে, কালীপুজোর উদ্বোধনে যান মমতা।

Source link

বাংলার খবর – শিক্ষা সংক্রান্ত নিউজ । বাংলার খবর সবার আগে পড়ুন ব্রেকিং নিউজ। থাকছে দৈনিক টাটকা খবর, খবরের লাইভ আপডেট। সবচেয়ে ভরসাযোগ্য বাংলার খবর পড়ুন  বাংলার খবর ওয়েবসাইটে।

Leave a Reply